বাংলাদেশে অ্যাঞ্জিওপ্লাস্টি এবং স্টেন্ট স্থাপন
Health & Wellness

বাংলাদেশে অ্যাঞ্জিওপ্লাস্টি এবং স্টেন্ট স্থাপন

অ্যানজিওপ্লাস্টি হল করোনারি হার্ট ডিজিসের একটি কার্যকর চিকিৎসা পদ্ধতি। এই পদ্ধতিতে ধমনীর মধ্যে জমে থাকা প্লাককে অপসারণ করে ধমনীকে প্রশস্ত করা হয়। ফলে হৃৎপিণ্ডে রক্ত সরবরাহ বৃদ্ধি পায় এবং হার্ট অ্যাটাক, হার্ট ফেইলিউর এবং অন্যান্য হার্টের জটিলতা প্রতিরোধে সহায়তা করে।

এবং

স্টেন্ট স্থাপন হল একটি চিকিৎসা পদ্ধতি যেখানে ধমনীতে একটি ছোট, জাল জাতীয় বস্তু (স্টেন্ট) স্থাপন করা হয়। এই পদ্ধতির মাধ্যমে ধমনীকে প্রশস্ত করা হয় এবং রক্ত ​​প্রবাহকে উন্নত করা হয়।

অ্যাঞ্জিওপ্লাস্টি এবং স্টেন্ট স্থাপন একটি কার্যকর পদ্ধতি যা হার্ট অ্যাটাক এবং স্ট্রোকের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করতে পারে। এই পদ্ধতিটি সাধারণত হাসপাতালে করা হয় এবং সাধারণ অ্যানেস্থেসিয়ার অধীনে করা হয়। পদ্ধতিটি সাধারণত 30 মিনিটের কম সময় নেয় এবং রোগীরা সাধারণত এক দিনের মধ্যে হাসপাতাল থেকে ছাড়া পান।

বাংলাদেশে অ্যাঞ্জিওপ্লাস্টি এবং স্টেন্ট স্থাপনের সুবিধা

  • এই পদ্ধতিটি ন্যূনতম আক্রমণাত্মক, যার অর্থ এটি অস্ত্রোপচারের তুলনায় কম ঝুঁকিপূর্ণ।
  • পদ্ধতিটি সাধারণত হাসপাতালে এক দিনের মধ্যে করা যেতে পারে।
  • পদ্ধতির পরে রোগীরা সাধারণত দ্রুত পুনরুদ্ধার করেন।

বাংলাদেশে অ্যাঞ্জিওপ্লাস্টি এবং স্টেন্ট স্থাপনের অসুবিধা

  • পদ্ধতিটি ব্যয়বহুল হতে পারে।
  • পদ্ধতির পরে পুনরাবৃত্তির সম্ভাবনা রয়েছে।

অ্যাঞ্জিওপ্লাস্টি এবং স্টেন্ট স্থাপনের জন্য রোগীর অবস্থা 

অ্যাঞ্জিওপ্লাস্টি এবং স্টেন্ট স্থাপনের জন্য যোগ্য হওয়ার জন্য, রোগীর অবশ্যই নিম্নলিখিত শর্তগুলি পূরণ করতে হবে:

  • রোগীর অবশ্যই অ্যাথেরোস্ক্লেরোসিস দ্বারা সৃষ্ট ধমনীর অবরুদ্ধি থাকতে হবে।
  • রোগীর অবশ্যই অস্ত্রোপচারের জন্য যথেষ্ট সুস্থ হতে হবে।

বাংলাদেশে অ্যাঞ্জিওপ্লাস্টি এবং স্টেন্ট স্থাপনের খরচ

বাংলাদেশে অ্যাঞ্জিওপ্লাস্টি এবং স্টেন্ট স্থাপনের খরচ রোগীর অবস্থা এবং নির্দিষ্ট পদ্ধতির উপর নির্ভর করে। সাধারণত, এই পদ্ধতির খরচ 100,000 থেকে 500,000 টাকার মধ্যে হতে পারে।

বাংলাদেশে অ্যাঞ্জিওপ্লাস্টি এবং স্টেন্ট স্থাপনের জন্য সেরা হাসপাতাল

বাংলাদেশে অ্যাঞ্জিওপ্লাস্টি এবং স্টেন্ট স্থাপনের জন্য অনেক হাসপাতাল রয়েছে। এর মধ্যে কিছু সেরা হাসপাতাল হল:

বাংলাদেশে অ্যাঞ্জিওপ্লাস্টি এবং স্টেন্ট স্থাপনের পরবর্তী যত্ন:

অ্যাঞ্জিওপ্লাস্টি এবং স্টেন্ট স্থাপনের পরে, রোগীদের অবশ্যই নিম্নলিখিত পরবর্তী যত্ন অনুসরণ করতে হবে:

  • রোগীদের অবশ্যই অন্তত 24 ঘন্টা হাসপাতালে থাকতে হবে। এই সময়ের মধ্যে, ডাক্তাররা রোগীর অবস্থা পর্যবেক্ষণ করবেন এবং যেকোনো জটিলতা দেখা দিলে তা চিকিত্সা করবেন।
  • রোগীদের অবশ্যই অন্তত 2 সপ্তাহের জন্য হালকা ব্যায়াম সীমাবদ্ধ করতে হবে। এটি রক্তনালীতে স্টেন্টের উপর চাপ কমাতে সাহায্য করবে।
  • রোগীদের অবশ্যই ডাক্তারের নির্দেশ অনুযায়ী ওষুধ সেবন করতে হবে। এই ওষুধগুলি রক্তচাপ, কোলেস্টেরল এবং রক্তের জমাট বাঁধা কমাতে সাহায্য করবে।
  • রোগীদের অবশ্যই স্বাস্থ্যকর জীবনধারা বজায় রাখতে হবে। এর মধ্যে রয়েছে স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়া, নিয়মিত ব্যায়াম করা এবং ধূমপান এবং অতিরিক্ত অ্যালকোহল পান করা এড়ানো।

অ্যাঞ্জিওপ্লাস্টি এবং স্টেন্ট স্থাপনের পরে রোগীদের জন্য কিছু সাধারণ পরামর্শ:

  • আপনার ডাক্তারের সাথে আপনার ওষুধের তালিকা নিয়ে আলোচনা করুন। নিশ্চিত করুন যে আপনি জানেন যে আপনার কোন ওষুধগুলি গ্রহণ করতে হবে, তাদের ডোজ কী এবং সেগুলি কখন গ্রহণ করতে হবে।
  • আপনার ডাক্তারের সাথে আপনার ডায়েট পরিকল্পনা নিয়ে আলোচনা করুন। একটি স্বাস্থ্যকর ডায়েট রক্তচাপ, কোলেস্টেরল এবং রক্তের জমাট বাঁধা কমাতে সাহায্য করবে।
  • নিয়মিত ব্যায়াম করুন। নিয়মিত ব্যায়াম রক্তচাপ, কোলেস্টেরল এবং রক্তের জমাট বাঁধা কমাতে সাহায্য করবে।
  • ধূমপান করবেন না এবং অতিরিক্ত অ্যালকোহল পান করবেন না। ধূমপান এবং অতিরিক্ত অ্যালকোহল পান রক্তনালীতে সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে।
  • নিয়মিত আপনার ডাক্তারের সাথে চেকআপ করুন। আপনার ডাক্তার আপনার অগ্রগতি পর্যবেক্ষণ করতে এবং প্রয়োজনে আপনার চিকিৎসা পরিকল্পনা সামঞ্জস্য করতে সক্ষম হবেন।

অ্যাঞ্জিওপ্লাস্টি এবং স্টেন্ট স্থাপন একটি কার্যকর পদ্ধতি যা হার্ট অ্যাটাক এবং স্ট্রোকের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করতে পারে। তবে, এই পদ্ধতির পরে রোগীদের অবশ্যই পরবর্তী যত্ন অনুসরণ করতে হবে যাতে তারা সুস্থ থাকতে পারে এবং জটিলতা এড়াতে পারে।

কার্ডিওলজি বাংলাদেশে আরও জানুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *