1
Health & Wellness

চিনি কম খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তোলার উপায়

কার্ডিওলজি ডেস্ক

আধুনিক জীবনধারায় অতিরিক্ত চিনি খাওয়া একটি বড় সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে। প্রক্রিয়াজাত খাবার, মিষ্টি পানীয় এবং ডেজার্টে প্রচুর পরিমাণে চিনি থাকে, যা রক্তে ট্রাইগ্লিসারাইডের মাত্রা বৃদ্ধি করে এবং হৃদরোগের ঝুঁকি বাড়ায়। চিনি কম খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তোলা শারীরিক স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

এ বিষয়ে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পুষ্টিবিদ ডা. মীনা রহমান বলেন, ‘অতিরিক্ত চিনি খাওয়া হৃদরোগ, ডায়াবেটিস এবং ওজন বৃদ্ধির ঝুঁকি বাড়ায়। চিনি কম খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তোলা যে কারও জন্য জরুরি। মনে রাখবেন, ধৈর্য ধরে সময় নিয়ে ধীরে ধীরে পরিবর্তন আনুন। কেননা অভ্যাসটিও আপনি একদিনে করে ফেলেননি। তাই সময় নিন হতাশ না হয়ে।’

চিনি কম খাওয়ার কিছু কার্যকর উপায়:

সফট ড্রিংকস পরিহার করা

সফট ড্রিংকসে প্রচুর পরিমাণে চিনি থাকে। নিয়মিত সফট ড্রিংকস পান করলে রক্তে ট্রাইগ্লিসারাইডের মাত্রা দ্রুত বৃদ্ধি পায়। তাই, সফট ড্রিংকস পরিহার করে পানি, ফলের রস বা ডেটক্স ড্রিংক পান করা উচিত।

রং চা চিনি ছাড়া 

2

অনেক মানুষ রং চা-তে প্রচুর পরিমাণে চিনি যোগ করে পান করেন। চিনি ছাড়া রং চা পান করলেই চাহিদা মেটানো সম্ভব।

ডেজার্ট হিসেবে ফল

মিষ্টি খাবারের পরিবর্তে ডেজার্ট হিসেবে তাজা ফল খাওয়া উচিত। ফলে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন, খনিজ এবং ফাইবার থাকে যা শরীরের জন্য উপকারী।

চিনির বদলে মধু 

মধু চিনির একটি স্বাস্থ্যকর বিকল্প। মধুতে প্রাকৃতিক চিনি থাকে এবং এটি শরীরের জন্য কিছু উপকারী গুণও ধারণ করে। তবে, মনে রাখবেন যে মধুও অতিরিক্ত পরিমাণে খাওয়া উচিত নয়।

মিষ্টান্ন পরিমিত

মিষ্টান্ন, কেক, পেস্ট্রি ইত্যাদিতে প্রচুর পরিমাণে চিনি থাকে। নিয়মিত মিষ্টান্ন খাওয়া রক্তে চিনির মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখা কঠিন করে তোলে। তাই, মিষ্টান্ন খাওয়া একদমই কমিয়ে দিতে হবে।

 

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *